ইন্দিরা গান্ধী স্বর্ণপদক

সাহিত্যকর্ম ও মানবকল্যাণে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ভারত-বাংলাদেশ সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদ কতৃক আয়োজিত ‘ভারত-বাংলাদেশ সাহিত্য সংস্কৃতি উৎসব-২০২২’-এ ইন্দিরা গান্ধী স্বর্ণপদক পেয়েছেন বাংলাদেশী গীতিকবি, লেখক, ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী এম মিরাজ হোসেন।

Indira Gandi Golden Award

শুক্রবার ভারতের যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তার হাতে ইন্দিরা গান্ধী স্বর্ণপদক তুলে দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অব. অধ্যাপক ড. পবিত্র সরকার।
অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন জাতীয় মানবাধিকার সোসাইটি বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট মানবাধিকার তাত্ত্বিক, সমাজবিজ্ঞানী মো: নজরুল ইসলাম তামিজি। বিশেষ অতিথি ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যসভার মাননীয় সদস্য শুভাশিস চক্রবর্তী।

এ ছাড়াও ভারত ও বাংলাদেশের কবি, সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবী, গবেষক, রাজনীতিক, সাংস্কৃতিক কর্মী, সাংবাদিক বরেণ্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

পেশাগত জীবনে এম মিরাজ হোসেন বাংলাদেশী একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের পরিচালক হিসেবে কর্মরত হলেও আদ্যপ্রান্ত তিনি একজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব। লেখালেখির অভ্যাস থেকেই তিনি বেশ কিছু জনপ্রিয় গান লিখেছেন। তন্মধ্যে কোনাল এবং তাহসিনের গাওয়া তুমি কাছে আসবে, মাহতিম সাকিবের তবু দেখা হোক, তুহিনের কণ্ঠে তুমি ছাড়া আমি যেমন উল্লেখযোগ্য। পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন দেশী ও আন্তর্জাতিক সামাজিক সংগঠনের সাথে যুক্ত আছেন।

ইতোমধ্যে তার লেখা তিনটি বই, ‘হাওয়ায় ভেসে হাজার মাইল’, ‘আপন নামা’ ও ‘ব্যাখ্যাতীত’ প্রকাশিত হয়েছে।

আবহমান কাল থেকে বাংলাদেশ ও ভারত ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে অভিন্নতা বজায় রেখে চলছে। ভারতের পক্ষ থেকে বাংলাদেশী একজন লেখককে দেয়া এই সম্মাননা নিঃসন্দেহে দু’টি দেশের ঐক্যতার পরিচয় বহন করে।

ভারত-বাংলাদেশ সাহিত্য সংস্কৃতি পরিষদ আয়োজিত বাৎসরিক এই অনুষ্ঠান দু’টি দেশের বন্ধুত্ব আরো প্রগাড় করবে।

 

তথ্যসূত্রঃ নয়াদিগন্ত, যায়যায়দিন, জনকণ্ঠ

Leave a Reply

Your email address will not be published.