News

অমর একুশে বইমেলায় এম মিরাজ হোসেনের নতুন দুই বই

লাখো বাঙালির প্রাণের উৎসব অমর একুশে বইমেলা ২০২৪ শুরু হয়েছে। এবারের বইমেলায় লেখক এম মিরাজ হোসেনের নতুন দুইটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচিত হয়েছে। গত ২ ফেব্রুয়ারি প্রকাশনী প্রতিষ্ঠান নওরোজ কিতাবিস্তানের স্টল থেকে লেখকের ভ্রমণকাহিনীমূলক বই “মিশন এভারেস্ট বেসক্যাম্প” এবং শব্দশিল্পের স্টল থেকে থ্রিলার উপন্যাস “অনিমন্ত্রিত অতিথি” বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। পাঠক, প্রকাশক, ও অন্যান্য লেখকদের উপস্থিতিতে জমকালো আয়োজনের মাধ্যমে কেক কেটে বইদুটির মোড়ক উন্মোচিত হয়। শব্দশিল্পের কর্নধার শরীফুর রহমান জানান, “অনিমন্ত্রিত অতিথি” বইটি অনলাইনে প্রি-অর্ডার বেশ ভালো হচ্ছ

Book

Onimontrito Otithi – M Miraz Hossain (অনিমন্ত্রিত অতিথি – এম মিরাজ হোসেন)

মায়ানগর চরের এক সাধারণ শিশু তপু। এক বিকেলে খেলা শেষে ঘরের ফেরা পথে এক বিচিত্র ঘটনার মুখোমুখি হয় সে। সেই ঘটনা তার জীবনে নিয়ে আসে আরও অসংখ্য ঘটনা। ঘটনাগুলোতে যুক্ত হয় তার পরিবার ও প্রতিবেশী এবং কিছু অপরিচিত মানুষ। এসব পরিবার, প্রতিবেশী ও অপরিচিত মানুষ এগিয়ে যায় এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে। সৃষ্টি হয় জীবন নেওয়া ও দেওয়ার মতো পরিস্থিতির। ঘটে চলে অস্বাভাবিক সব ঘটনা। মানুষের শ্রেষ্ঠত্ব যেখানে শেষ, সেখানে শুরু স্রষ্টার শ্রেষ্ঠত্ব! উত্তম বিচারক হয়ে তিনি মিলিয়ে দেন সব অমিলিত হিসাব। জয় হয় সত্য ও ন্যায়ের। বইটি অনলাইনে কিনতে পারেনঃ রকমারী, বইফেরী। 

Book

Mission Everest Base Camp – M Miraz Hossain (মিশন এভারেস্ট বেসক্যাম্প – এম মিরাজ হোসেন)

২০২৩ সালের প্রথম দিকে আমি এভারেস্ট জয় করবো বলে মনস্থির করি। এই নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করতে গিয়ে জানি, নানারকম শারীরিক জটিলতা থাকায় আমার পক্ষে এই অভিযান সম্পন্ন করা সম্ভব নয়। তখন সিদ্ধান্ত নিই, এভারেস্টের শীর্ষে না চড়তে পারি, অন্তত বেসক্যাম্প পর্যন্ত যাব। এই সিদ্ধান্ত নিয়ে পর্বতারোহণ সংশ্লিষ্ট মানুষজনের সাথে আলাপ-আলোচনা করতে গেলে তারা আমাকে জানায়, আমার শারীরিক যে অবস্থা– এই অবস্থা নিয়ে বেসক্যাম্প অভিযানে বের হওয়া মানে যেচে নিজেকে ঝুঁকিতে ফেলা। তাদের পূর্বের সাবধানবাণী মানলেও এবার আর মানতে মন সায় দিলো না। যাব বলেই ঠিক করি এবং মে মাসের এক সকালে বেরিয়ে পড়ি নেপাল অভিমুখে। নেপালে

Book

Ekjon Tara Mia – M Miraz Hossain (একজন তারা মিয়া – এম মিরাজ হোসেন)

বাংলাদেশের ইতিহাসে মুক্তিযুদ্ধ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। অনেক ত্যাগ-তিতিক্ষা আর সংগ্রামের বিনিময়ে আমাদের আজকের এই স্বাধীন দেশ। ছোটবেলায় মুক্তিযুদ্ধের ভয়াবহতার কথা যখন প্রথম জানি, তখন থেকেই মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে বুকের ভেতর একটা হাহাকার কাজ করে। যেসব অকুতোভয় মানুষ জীবনের পরোয়া না করে নিজেদের সমর্পণ করেছিলেন সেই অনিশ্চিত যুদ্ধে, তাদের জন্য সম্ভ্রমে মাথা নুয়ে আসে।  তারপর ছোটবেলার পর্ব পার করে যখন আরেকটু বড় হলাম– মনে মনে ভাবতাম, নিজে তো মুক্তিযুদ্ধ করতে পারিনি। অন্তত সেই বীর সেনানীদের জন্য যদি কিছু করতে পারতাম! এই উপন্যাস মূলত সেই তাড়নার ফল।  কী বিক্রমে আমাদের পূর্বপুরুষরা এক

Book

Kovu Kache Kovu Dure – M Miraz Hossain (কভু কাছে কভু দূরে – এম মিরাজ হোসেন)

মানব মন বড়ই জটিল। এর সাথে তুলনা করা যেতে পারে কেবল মহাবিশ্বকে। যাকে আমরা জানতে পারি, বুঝতে পারি– কিন্তু নির্দিষ্ট কোনো ছকে বাঁধতে পারি না। কারণ জীবন ও বাস্তবতা– কোনোটির লাগামই আমাদের হাতে নেই। চলতি জীবনে আমরা এমন কিছু ঘটনার কথা শুনি, যেগুলো সচারচর আমরা দেখি না, শুনি না কিংবা বুঝি না।  আচমকা শুনে থ বনে যাই। বিপন্ন বিস্ময়ে নিজেকেই প্রশ্ন করি, এমনও বুঝি হয়? ‘কভু কাছে কভু দূরে’ উপন্যাসে আবির, তিথি আর উর্বশীর হাত ধরে আমি সমাজের সেই বিরল একটি ছবি আকাঁর চেষ্টা করেছি। যা পাঠকদের সৌন্দর্য ও অভ্যস্ততাবোধে ছোট্ট একটি ঘা হলেও দিতে সক্ষম হবে বলে আমার বিশ্বাস। বইটি অনলাইনে কিনতে